অসহনীয় গরম: আজ আরও তীব্র হতে পারে

টাইগার নিউজ

0017_21953_0টাইগার নিউজ :: সারাদেশে গরম অসহনীয় হয়ে উঠেছে। সর্বত্র চলছে তাপপ্রবাহ। খরতাপে মানুষসহ প্রাণীকুল হাঁপিয়ে উঠেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্তব্যরত পূর্বাভাস কর্মকর্তা (ডিএফও) আবুল কালাম মল্লিক জানিয়েছেন, বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেড়ে গেছে। আকাশে নেই কোনো মেঘের বলয়। এতে সূর্যের তাপ বায়ুমণ্ডলে কোনো বাধা না পেয়ে সরাসরি ভূ-পৃষ্ঠে চলে আসায় বেড়ে যাচ্ছে গরমের তীব্রতা। এই পরিস্থিতি আরও দুই থেকে তিন দিন থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।

তারপর দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হতে পারে। আর বৃষ্টি হলে গরম কমে যাবে। তিনি জানান, আজ সোমবার তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে।

গত শনিবার দেশের কয়েকটি স্থানে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ থাকলেও রবিবার রাঙামাটি, খুলনা ও কুষ্টিয়ার উপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। তাপপ্রবাহের আওতায় রাজধানী ঢাকাও রয়েছে।

রবিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাঙামাটিতে ৪০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়ার তাপমাত্রা ছিল ৪০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকার সর্বোচ্চ তাপামাত্রা দাঁড়ায় ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এর আগের দিন অর্থাত্ শনিবার রাঙামাটি ও ঢাকার তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৩৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ৩৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অর্থাত্ তাপমাত্রা বেড়েই চলেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে মৃদু, ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে মাঝারি ও ৪০ থেকে ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে তীব্র তাপপ্রবাহ বলা হয়।

রাজশাহী অফিস জানায়, গ্রীষ্মের প্রচণ্ড তাপদাহে জ্বলছে রাজশাহী। এক সপ্তাহ ধরে বৃষ্টির দেখা মিলছে না। সকাল থেকে সূর্যের প্রচণ্ড তাপে রুক্ষ্ম হয়ে উঠছে প্রকৃতি। ফলে দুপুরের দিকে নগরীর রাস্তাঘাটে লোক চলাচল থাকেই না। তাপমাত্রা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর সঙ্গে রয়েছে ঘন ঘন লোডশেডিং। মানুষের সময় কাটছে অসহনীয় অবস্থার মধ্য দিয়ে।

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, পানি স্বল্পতাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এ অঞ্চলের মানুষ। প্রতিদিনই হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে ডাক্তাররা বলছেন, আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। চিকিৎসায় সহজেই রেহাই পাওয়া যায় গরমের কারণে সৃষ্ট রোগবালাই থেকে।

সিলেট অফিস জানায়, সিলেটে কয়েক দিন থেকে প্রচণ্ড গরমে মানুষ অস্থির হয়ে পড়েছে। ঘরে বাইরে গরম। কোথাও দুদণ্ড শান্তি নেই। এই বৈশাখেও সেভাবে বৃষ্টির দেখা নেই। বিকালে আকাশে মেঘের দেখা মিললেও কাঙ্কিত বৃষ্টির দেখা মেলে না। এর ওপরে তীব্য লোডশেডিং। গরমে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে ।

আপনার মতামত



close