তন্বী হত্যা মামলা, মানবাধিকার সংগঠনের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের প্রতিবাদ

Tiger Logo T
নিজস্ব প্রতিবেদক

‘গফ্ফার বিশ্বাসের পুত্রবধু তন্বীর মৃত্যু কোন স্বাভাবিক মৃত্যু ছিলনা। পুলিশের সুরতহাল রিপোর্টে ভিকটিমের শারিরীক নির্যাতনের বিবরণ লিপিবদ্ধ হয়েছে। পরবর্তীতে থানা কর্তৃক মামলা না নেয়া এবং আদালতে বাদি কর্তৃক হত্যা মামলা দায়ের করা ইত্যাদি সবই আইনের দ্বারা সিদ্ধ বিষয়। পুলিশ ও সি.আই.ডির চার্জসীটেও ভিকটিমের প্রতি নির্যাতনের বিবরণ লিপিবদ্ধ রয়েছে। সেক্ষেত্রে সুশীল সমাজ নারী নির্যাতন ও হত্যার পক্ষে না দাড়িয়ে কি আসামীর পক্ষ হয়ে আন্দোলন করবে?’
শনিবার খুলনা প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ প্রশ্ন তোলেন নাগরিক ও মানবাধিকার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। তারা বলেন, গত ১৭ এপ্রিল খুলনা প্রেস ক্লাবে তন্বী হত্যা মামলাকে কেন্দ্র করে সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল গফ্ফার বিশ্বাস যে সংবাদ সম্মেলন করে খুলনার বিভিন্ন নাগরিক সংগঠন ও মানবাধিকার কর্মীদের গায়ে কালিমা লেপন করার চেষ্টা করেন, যা অনভিপ্রেত। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও খুলনা নাগরিক সমাজে আহবায়ক এ্যাডভোকেট আ.ফ.ম মহসীন। তিনি বলেন,
‘কোন ব্যাক্তিকে ছোট করা বা অপরাধী বলে চিহ্নিত করা নাগরিক ও মানবাধিকার সংগঠনের কাজ নয়। সমাজে ঘটে যাওয়া অন্যায়ের বিরুদ্ধে তথ্য উপস্থাপন করে জনসম্মুখে নিয়ে আসাই সুশীল সমাজের কাজ। এসময় বাংলাদেশের কমিউনিষ্ঠ পার্টি নগর কমিটির সভাপতি এইচ এম শাহাদৎ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য এস এম ফারুখ-উল -ইসলাম, বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থার সমন্বয়কারি এড. মোমিনুল ইসলাম, নারী নেত্রী এড. তসলিমা খাতুন ছন্দা, ব্লাষ্টের সমন্বয়কারী এড.অশোক কুমার সাহা, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব এস এম সোহরাব হোসেন, শেখ আ: হালিম, জেলা মহিলা শ্রমিকলীগের সভাপতি মনিরা সুলতানা, গ্লোবাল, খুলনার শাহ মামুনর রহমান তুহিন, সেফের সমন্বয়কারী আসাদুজ্জামান, দীপক কুমার দে, জনউদ্যোগ, খুলনার সদস্যসচিব মহেন্দ্র নাথ সেন উপস্তিত ছিলেন।

আপনার মতামত



close