শ্যামনগরের কলেজ ছাত্রী শিখা অপহরণ মামলায় গ্রেফতার ১

Tiger Logo T
নিজস্ব প্রতিবেদক

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ধানখালি গ্রামের কলেজ ছাত্রী শিখা রানী মন্ডল অপহরণ মামলায় পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করেছে। শুক্রবার গভীর রাতে তাকে সাতক্ষীরা শহরের ইটাগাছা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তবে অপহরণের ২৩ দিনেও পুলিশ অপহৃত কলেজ ছাত্রী শিখা রানী মন্ডলকে উদ্ধার করতে পারেনি।
মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ ও পূর্ব ধানখালি গ্রামের হরেন মন্ডলের ছেলে অশ্বিনী কুমার মন্ডল জানান, তার মেয়ে মুন্সিগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের মানবিক বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী শিখা রানী মন্ডলকে গত ৭ এপ্রিল সকাল ৮টার দিকে কলেজে যাওয়ার সময় অপহরণ করা হয়। কোথাও খুঁজে না পেয়ে ১০ এপ্রিল তিনি শ্যামনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।
তিনি আরো জানান, পরবর্তীতে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রে তিনি জানতে পারেন ছোট ভেটখালি গ্রামের বর্তমানে সাতক্ষীরা শহরের ইটাগাছার পুরাতন বস্ত্র ব্যবসায়ি শুকুর আলীর ছেলে শফিকুল ইসলামসহ কয়েকজন শিখাকে অপহরণ করেছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলামসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের পরামর্শে মেয়েকে না পেয়ে বাধ্য হয়ে তিনি গত ২৭ এপ্রিল রাতে শ্যামনগর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলায় শুকুর আলী, তার ছেলে শফিকুল ইসলামসহ কয়েকজনকে আসামী করা হয়। শুক্রবার রাত ১০টার দিকে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা শ্যামনগর থানার উপপরিদর্শক প্রদীপ কুমার রায় শুকুর আলীকে ইটাগাছা থেকে গ্রেফতার করেন। এদিকে, অশ্বিনী কুমার মন্ডল তার মেয়েকে উদ্ধারের জন্য পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা শ্যামনগর থানার উপ-পরিদর্শক প্রদীপ কুমার রায় জানান, শুকুর আলীকে গ্রেফতার করে তার ছেলে শফিকুলের ঠিকানা খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। একইসাথে শিখা রানী মন্ডলকে উদ্ধারের তৎপরতা অব্যহত রয়েছে।

আপনার মতামত



close