জলাবদ্ধতা নিরসন : কেসিসির প্রতি পরিবেশবাদী সংগঠনের ক্ষোভ

Tiger Logo T
নিজস্ব প্রতিবেদক

খুলনা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় জলাব্ধতা নিরসনে খুলনা সিটি কর্পোরেশন বর্ষা মৌসুমের আগে কার্যকর কোন ভূমিকা গ্রহল না করায় ক্ষোভ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনার বিভিন্ন পরিবশে ও নাগরিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
ডববৃতিদাতারা হলেন ঃ খুলনা নাগরিক সমাজের আহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এ্যাড. আ ফ ম মহসীন, নেটওয়ার্ক ফর ক্লাইমেট রেজিলিয়েন্ট বাংলাদেশ (এনসিআরবি)’র অধ্যক্ষ আলী আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুল জলিল, পরিবেশ সুরক্ষায় উপকূলীয় জোট-এর আহবায়ক এসএম শাহনওয়াজ আলী, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা)’র মাহফুজুর রহমান মুকুল, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)’র এ্যাড. মো: বাবুল হাওলাদর, কোস্টাল ডেভেলপমেন্ট পার্টনারশিপ (সিডিপি)’র এসএম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, খুলনা উন্নয়ন ফোরাম এর চেয়ারম্যান শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন, মহাসচিব এমএ কাশেম, নীডস্ এর নির্বাহী পরিচালক এ্যাড. শেখ ফিরোজ আহমেদ, উত্তমাশা’র নির্বাহী পরিচালক কামরান হাচান মন্টু,এএফসি’র সভাপতি মো: রাকিবুজ্জামান রাকিব, নির্বাহী পরিচালক দেশ আহমেদ রাজু, চেতনা ৭১ এর সহ-সাধারণ সম্পাদক জেনিফা শাহমিন, পিপলস্ রাইট ভয়েস (পিআরভি)’র সাধারণ সম্পাদক এম মোস্তফা কামাল প্রমুখ।
বিৃতিতে বলা হয়, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে নগরবাসী জলাদ্ধতার কারণে চরম ভোগান্তির স্বীকার হয়। নগরীর গুরুত্ত্বপূর্ণ প্রতিটি সড়ক জলাবদ্ধ হয়। এখন পর্যন্ত কেসিসি’র তালিকাভূক্ত খালগুলো দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার করে পুন:খননের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। উল্টো নতুন করে ময়ূর নদীসহ বিভিন্ন খাল দখল করে চলছে। ড্রেনগুলোর নিয়মিত পরিস্কার না করার ফলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের চরম উদাসিনতা নগরবাসীর ভোগান্তি দিনদিন বাড়িয়ে দিচ্ছে। ভৈরব, রুপসা, ময়ূর নদী ড্রেজিং এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন করতে হবে। অপরিসীম নগরীর এ জলাবদ্ধতা থেকে নগরবাসী মুক্তি চায়।

আপনার মতামত



close