‘চুরির অপবাদ’ দেয়ায় গায়ে আগুন দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা

টাইগার নিউজ

image-24066শ্বশুরবাড়ির লোকজন চুরির অপবাদ দেয়ায় বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে নুপুর বেগম নামে এক গৃহবধূ গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার রাতে মোরেলগঞ্জ উপজেলার বহরবুনিয়া ইউনিয়নের ঘষিয়াখালি গ্রামের মো. অলি শরীফের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করেছে।

নুপুর বেগম পাশের উত্তর ফুলহাতা গ্রামের নাছির জমাদ্দারের মেয়ে এবং ঘষিয়াখালি গ্রামের মো. সোলায়মান শরীফের স্ত্রী।

বহরবুনিয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. জাহিদুল ইসলাম খলিফা রাতে মুঠোফোনে এই প্রতিবেদককে বলেন, পরিবারের সদস্যদের অনুপস্থিতিতে দিনমজুর মো. সোলায়মান শরীফের স্ত্রী নুপুর বেগম ঘরের দরজা আটকে শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। সোলায়মান শরীফের প্রতিবেশিরা ঘরে আগুন দেখতে পেয়ে আমাকে খবর দেয়। আমি দ্রুত ওই বাড়িতে গিয়ে বসত ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় নুপুরকে ঘরের মেঝেতে দেখতে পাই। তার শরীরের অধিকাংশ স্থান পুড়ে গেছে। পরে স্থানীয় শল্য চিকিৎসককে ডাকলে তিন তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ইউপি সদস্য বলেন, প্রেমের সম্পর্ক ধরে ২০১৬ সালের ২৩ মার্চ মোরেলগঞ্জ উপজেলার ঘষিয়াখালি গ্রামের মো. অলি শরীফের ছেলে মো. সোলায়মান শরীফের সঙ্গে পাশের উত্তর ফুলহাতা গ্রামের নাছির জমাদ্দারের মেয়ে নুপরের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসার ভালই চলছিল। হঠাৎ করে চার পাঁচ মাস আগে নুপুরকে ঘরের চাল চুরি করে বিক্রি করে বলে অপবাদ দেয় তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এই তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে এই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে প্রায় কলহ হচ্ছিল। ওই কলহের জের ধরে নুপুর গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে মেয়ের বাবা অভিযোগ করছেন।

মোরেলগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তারেক বিশ্বস বলেন, রবিবার বিকালে গৃহবধূ নুপুরের স্বামী, শাশুড়ি ও ননদ পাশের রামপাল উপজেলায় অসুস্থ এক আত্মীয়কে দেখতে যায়। নুপুর ও তার শ্বশুর মো. অলি শরীফ বাড়িতে ছিলেন। সোমবার বিকালে শ্বশুর অলি শরীফ বাড়ি থেকে পাশের বাজারে গেলে বাড়ি ফাঁকা পেয়ে গৃহবধূ নুপুর ঘরের দরজা বন্ধ করে গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে। তবে কী কারণে নুপুর আত্মহত্যা করেছেন তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

সূত্র : ঢাকাটাইমস

আপনার মতামত



close