শক্ষিককে কানে ধরানো এবং বাস্তবতাৃ.

টাইগার নিউজ

04082014114নারায়ণগঞ্জে যে শক্ষিককে জনসম্মূখে কানে ধরানো হয়ছেে সে শক্ষিকরে অপরাধ কি ছলি তা একবারও জানতে চাইবো না । তবে একজন শক্ষিককে এভাবে কানে ধরানো উচতি হয়নি । দশেে আইন আছে । কাজইে কউে অপরাধ করলে তাকে আইনরে কাছে সাের্পদ করা আমাদরে দায়ত্বি কন্তিু স্বহস্তে শাস্তি দয়োর অধকিার আমরা রাখি না । কনেনা এটা করলে রাষ্ট্রে উচ্ছৃঙ্খলতা সৃষ্টি হবে এবং প্রভাবশালী র্কতৃক অধীনস্থরা শোষতি হতইে থাকবে । অন্যান্য পশোজীবরি সাথে শক্ষিকতা পশোকে তুলনা করা ঠকি নয় । কনেনা একজন শক্ষিককে সম্মান দয়ো উচতি, তার দ্বারা সুশক্ষিা পাওয়ার জন্য । একজন শক্ষিককে উঁচু শরিে তার শক্ষর্িাথীদরে সামনে দাঁড়ানোর সুযোগ না দলি,ে সে জাতি মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে শখিতে পারে না ।অনকেকইে বলবনে, সে শক্ষিক মহা অন্যায় করছেনে । আমওি মানছ,ি তার অন্যায় বৃহৎ । কন্তিু এ অন্যায় রোধ করার জন্য যদি রাষ্ট্র কাঠামো বদলাতে হয়, তবে সে চন্তিা করা উচতি । এভাবে এক’দুজন শক্ষিককে কানে ধরালে তাতে র্ধমরে অবমাননা কমবে না বরং বাড়বে । আমরা সমাজে বাস করি । সহজাতভাবইে এখানে মানুষরে মধ্যে আত্মকি সর্ম্পক গড়ে উঠে । র্সবদা শোষতিরে ওপরই মানুষরে বশেি সমবদেনা জন্মে । শোষতি, সে হোক অভযিুক্ত কংিবা অপরাধী, তারপরওে ।
ৃৃ.
আজ বাংলাদশেরে অনকে মানুষকে দখেলাম নারায়ণগঞ্জরে সইে শক্ষিকরে প্রতি সমবদেনা জানয়িে তার প্রতি অবচিাররে প্রতবিাদ করছে । মনুষ্যত্ত্বরে দাবীতে প্রতবিাদ জানানো উচতি । স্বয়ং শক্ষিামন্ত্রী এবং আইনমন্ত্রীও দোষীদরে শাস্তি প্রদানরে কথা বলছনে । আমওি এমন ঘটনার তীব্র নন্দিা জানাই । কন্তিু প্রশ্ন কছিু থকেইে যায় । ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়রে সইে অধ্যাপকরে কথা মনে আছ,ে যাকে একটি পক্ষ কলি, ঘুষি দয়িে শরীররে জামাটি র্পযন্ত ছন্নিভন্নি করে দয়িছেলি । কই, তখন তো এর কোন প্রতবিাদ শুনতে পাইনি । আজ যারা, আইন হাতে তোলাকে গুরুতর অপরাধ হসিবেে সাব্যস্ত করছনে, তারা তো সদেনি একবাররে জন্যওে সামান্য আফসোস র্পযন্ত করনেনি । একই রাষ্ট্রে এমন দ্বমিুখীতা করলে চলবে কি করে ? শৃঙ্খলা-শান্তি বজায় রাখার জন্য সাম্য প্রতষ্ঠিার বকিল্প কোন পন্থা নইে বোধহয় ।
ৃ..
শক্ষিককে যমেন কান ধরানো যায়না তমেনি র্ধম নয়িওে কটূক্তি করার অধকিার কারো থাকা উচতি নয় । রাষ্ট্ররে কোন ক্ষুদ্রতম র্ধম কংিবা সে র্ধমরে অনুসারীর সাথে এমন কোন কথা বা আচরণ করা উচতি নয় যাতে তার র্ধমানুভূতরি ওপর আঘাত আসে । এ রাষ্ট্ররে বৃহত্তর অংশ জুড়ে ইসলামরে স্থান । কাজইে কোটি কোটি র্ধমপ্রাণ মুসলমিরে র্ধমানুভূতকিে শ্রদ্ধা জানানো অন্য সকল র্ধমপালকদরে উচতি । রাষ্ট্রে চাপাতবিাজদরে উত্থাণ যমেন রোধ করতে হবে তমেনি নর্মিূল করতে হবে সকল র্ধমবদ্বিষেী নাস্তকি ও র্ধম কটূক্তকিারীদরে । রাষ্ট্ররে শৃঙ্খলার র্স্বাথইে এখানে অবস্থানরত র্সব র্ধমরে সব জনগোষ্ঠীকে নমনীয়তা দখোতে হবে ।
ৃৃ
নারায়ণগঞ্জরে মত ঘটনার পূণরাবৃত্তি আর ঘটুক সটো কোনভাবইে কামনা করি না । এটাও কামনা করি না, কোন শক্ষিক অযাচতিভাবে এমন কোন আচরণ করুক কংিবা কথা বলুক. যার জন্য অসম্মান বয়ে বড়োতে হয় গোটা শক্ষিক সমাজকে । শক্ষিকরা সমাজরে সবচেয়েে শক্ষিতিজন । তারা যদি সাধারণ র্মূখদরেন মত আচরণ করনে তবে সে জাতরি র্দূভোগরে সীমা থাকে না । একজন শক্ষিককে কানে ধরানোর পর, যারা তাকে কানে ধরাতে বাধ্য করছেে তাদরেকে ফাঁসি দলিওে কি শক্ষিক তার র্পূবরে সম্মানরে স্থানে আর ফরিে যতেে পারবনে ? সমাজে অপরাধ প্রবনতা হু হু করে বাড়ছে । একই ধরণরে অপরাধরে ক্ষত্রেে অভযিুক্তদরে ক্রসফায়ার দলিওে পরর্বতীতে কংিবা সমসমায়কি কালে অন্য অপরাধীরা দমছে না কংিবা সামান্য ভীতসন্ত্রস্থ র্পযন্ত হচ্ছে না । রাষ্ট্ররে চারধিারে এমনভাবে অস্থরিতা, অসহষ্ণিুতা বাসা বঁেধছেে যার দরুণ সম্মানী মানুষরে সম্মান ধূলোয় মশিে যাওয়ার শঙ্কা স্বাভাবকি রীততিে পরণিত হয়ছেে ।
ৃৃ
জাগতকি পৃথবিীতে আমাদরে শষে আশ্রয় রাষ্ট্র । রাষ্ট্ররে কাছে আমরা নরিাপত্তা খুঁজ,ি শান্তি কামনা করি । রাষ্ট্রকে উদ্যোগী হয়ে অসাম্প্রদায়কিতার সম্প্রীতি সৃষ্টি করতে হবে । বশ্বিরে র্সবস্থানইে সংখ্যাগুরুদরে র্স্বাথ প্রধান্য পায় । বাংলাদশেে যদি এর ব্যতক্রিম কছিু ভাবা হয়, তবে তা নশ্চিতিভাবইে বশিৃঙ্খলার সৃষ্টরি সুযোগ করে দবি,ে মানুষরে মধ্যে বাড়বে অপরাধ প্রবনতা । রাষ্ট্রীয় আইন দ্বারাই শুধু শান্তি প্রতষ্ঠিা করা যায়না । যদি যতে, তবে বশ্বিরে কোন রাষ্ট্রকইে অশান্ততিে দখেতে হত না । রাষ্ট্র তার কল্যান অনুধাবন করুক, খুঁজে নকি শান্তরি পন্থা । যার যার স্থানে তার সম্মান বহাল থাকুক । ভালো থাকুক আমাদরে শক্ষিকরা । রক্ষা পাক প্রত্যকে র্ধমগোষ্ঠীর স্বর্ধমীয় চতেনা ।

রাজু আহমদে । কলামষ্টি ।

fb.com/rajucolumnist/

আপনার মতামত



close