সিঁদুরে লাল লিচু, আগামী সপ্তাহে বাজারে

টাইগার নিউজ

file (6)দিনাজপুরের গাছে গাছে মন জয় করা স্বাদের লিচুতে সিঁদুরে লাল রং ধরেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বাজারে আসছে সেই টসটসে ও লোভনীয় লিচু।

দিনাজপুরের লিচু মানেই অন্যরকম মিষ্টি ও রসালো স্বাদ। আর বৈশিষ্ট নিয়ে বিভিন্ন জাতের লিচুর মধ্যে বেদানা, বোম্বাই, মাদ্রাজি, চায়না-থ্রি আর দেশি লিচু এখন গাছে গাছে। বাগানগুলোতে এখন মৌ মৌ গন্ধ।

চাষীরা জানায়, প্রতি শত লিচুর মূল্য ২০০ থেকে ৪৫০ টাকা হবে। বেদানা ও চায়না-থ্রিসহ অন্যান্য জাতের লিচু গতবারের তুলনায় দাম বেশি হবে।

দিনাজপুরের লিচু পল্লী বলে খ্যাত মাসিমপুর এলাকার বাগানী জিয়াউর রহমান জানান, বাগানের গাছে থোকায় থোকায় লিচু আলতো সিঁদুর রঙে রঙিন হয়ে ডালে ডালে ঝুলছে। আগামী সপ্তাহ থেকেই কিছু লিচু নামতে পারে বাজারে। ভালো ফলনের আশাবাদী তিনি। ঝড় না হলে ফলন ভালো হবে।

পুলহাট-মাসিমপুরের আসাদুজ্জামান লিটন জানান, দিনাজপুরের দক্ষিণ কোতোয়ালি ও মাসিমপুরসহ আশপাশে কিছু এলাকায় ভিটা, জমি, বশতবাড়ি এবং ডাঙ্গা জমিই ছিল লিচু আবাদের জন্য। এরপরও দিনাজপুরের সুমিষ্ট লিচু আজও সারাদেশে একচেটিয়া আধিপত্য বজায় রেখেছে। তবে বর্তমানে লিচু আবাদের পরিধি বেড়েছে।

তিনি আরো জানান, একটি বড় গাছে ২ থেকে ১০ হাজার পর্যন্ত এবং সবচেয়ে ছোট গাছে ১ থেকে ২ হাজার লিচু এক মৌসুমে পাওয়া যায়। নতুন গাছে ৫০০ থেকে ৬০০টি পর্যন্ত লিচু হয়।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ছোট-বড় নিয়ে ৩১০০টির অধিক লিচুর বাগান রয়েছে। বাগান ছাড়াও কিছু সংখ্যক বাড়ি, বাড়ি সংলগ্ন ভিটা জমিতে ২ থেকে ৪টি করে লিচু গাছ রয়েছে। লাগানো গাছ সমূহের অধিকাংশ মাদ্রাজি ও বোম্বাই জাত। ৩০ শতাংশ গাছের মধ্যে বেদানা ও চায়না-থ্রি এর জাত রয়েছে।

দিনাজপুরের বিভিন্ন উপজেলায় লিচুর চাষ বাড়ছে। বর্তমানে পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলায়ও লিচুর চাষাবাদ ছড়িয়ে পড়েছে।

দিনাজপুর জেলায় ৪০৫৭ হেক্টর জমিতে ( ৩১০০ হেক্টর বাগান ও ৯৫৭ হেক্টর বসতবাড়ি) ছোট-বড় নিয়ে ৩১২৮টির অধিক লিচুর বাগান রয়েছে। এসব বাগানে প্রায় ২ লাখ ২০ হাজার গাছ রয়েছে। এক হেক্টরে প্রায় ২শটি গাছ থাকে। গত বছরে এ জেলায় ২৩ হাজার ২২৬ মে.টন লিচু পাওয়া গেছে। এবারেও সেই পরিমাণ পাওয়া যাবে বলে কৃষি বিভাগ জানিয়েছে।

সেই হিসেবে এ মৌসুমে জেলায় ১৬০ কোটি থেকে ১৭০ কোটি টাকা শুধু লিচু থেকে পাওয়া সম্ভব।

সূত্র : বাংলামেইল২৪ডটকম

আপনার মতামত



close