সুন্দরবনে র‌্যাব-কোস্ট গাার্ডের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ৪ বনদস্যু নিহত

Bagerhat, Ahsan photo - 1
আহসানুল করিম, বাগেরহাট

pic-ops-RABবাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের কচিখালী-চান্দেশ্বর এলাকায় শুকপাড়া খালে বৃহস্পতিবার ভোরে র‌্যাব-কোস্ট গার্ডের যৌথ বাহিনীর সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে নয়ন বাহিনী প্রধান মনিরসহ ৪ বনদস্যু নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ১৮টি দেশী-বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্রসহ সাড়ে ৪শ’ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।
র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক লে: কর্ণেল ফরিদুল আলম জানান, সুন্দরবনের দুর্ধর্ষ বনদস্যু নয়ন বাহিনীর সদস্যরা শরণখোলা রেঞ্জের বনের কচিখালী-চান্দেশ্বর এলাকায় অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৬টার দিকে ওই এলাকায় অভিযান চালায় র‌্যাব-৮ ও কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোনের সদস্যরা। এসময় অভিযানকারীদের উপস্থিতি টের পেয়ে সুন্দরবনের মধ্যে লুকিয়ে থাকা বনদস্যুরা র‌্যাব-কোস্ট গার্ড সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায় র‌্যাব-কোস্ট গার্ড সদস্যরা। এসময় উভয়ের মধ্যে প্রায় ঘন্টাব্যাপী  চলা বন্দুক যুদ্ধের এক পর্যায়ে বনদস্যুরা রণে ভঙ্গ দিয়ে সুন্দরবনের গহীন আরণ্যে পালিয়ে যায়। পরে র‌্যাব-কোস্ট গার্ড সদস্যরা ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালালে ৪টি লাশসহ বিপুল পরিমান আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি পড়ে থাকতে দেখে। এসময়ে ঘটনাস্থলে আসা জেলে-বনজীবীরা লাশ ৪টি বনদস্যু বাহিনী প্রধান মনির (২৫) ও তার বহিনীর সদস্য এনাম, গিয়াস ও হাসান বলে শনাক্ত করে। ঘটনাস্থলেই গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয় বাহিনীর প্রধান মনির বাড়ী বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলায় ও তার সহযোগী এনাম (৩৫), গিয়াস (৩০)ও হাসানের (২২) বাড়ী চট্টগ্রাম অঞ্চলে বলে জেলে-বনজীবীরা প্রথমিক ভাবে দাবী করেছে। র‌্যাব-কোস্ট গার্ড সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে ৪টি একনালা বন্দুক, ২টি দুইনালা বন্দুক, ২টি পয়েন্ট  ২২ বোর রাইফেল, ৪টি কাটা রাইফেল, ৬টি শুটার গান, ৪৫০ রাউন্ড বিভিন্ন ধরনের গুলি, ভারতীয় ভোদা ফোনসহ সিম ও বেশ কয়েকটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করে। ঘটনাস্থল থেকে কথিত বন্দুক যুদ্ধে নিহত নয়ন বাহিনী প্রধান মনিরসহ ৪ বনদস্যুর লাশ ও  উদ্ধারকৃত ১৮টি দেশী-বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্রসহ সাড়ে ৪শ’ রাউন্ড গুলি শরণখোলা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এঘটনায় শরণখোলা থানায় যৌথ বাহিনীর পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
র‌্যাব-কোস্ট গার্ড আরো জানায়, বনদস্যু প্রধান মনিরসহ তার নয়ন বাহিনী সদস্যরা গত ১৯ ফেব্রয়ারী রাতে সুন্দরবনের পক্ষিরচর এলাকায় জেলে বহরে গুলি চালিয়ে ইসমাইল হোসেন কাজী (২৫) এক জেলেকে হত্যাসহ আন্য ৪ জেলেকে আহত করে। ওই ঘটনার পর র‌্যাব গত ৩ মার্চ সুন্দরবন উপকূলে আভিযান চালিয়ে আগ্নেয়াস্ত্রসহ নয়ন বাহিনীর ৩ সদস্যকে প্রেপ্তার ও তাদের হাতে মুক্তিপনের দাবীতে আটক ২৭ জেলেকে উদ্ধার করে। আটক ওই ৩  বনদস্যুর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-কোস্ট গার্ডের যৌথ বাহিনী বৃহস্পতিবার ভোরে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের কচিখালী-চান্দেশ্বর এলাকায় শুকপাড়া খালে এই অভিযান চালায়।

আপনার মতামত



close