তিন শিশুকে পুড়িয়ে হত্যা: নরপশুর বিচার দাবি শৈলকুপাবাসীর

টাইগার নিউজ

0000_97292ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা শহরের কবিরপুর নতুন ব্রিজপাড়া এলাকায় তিন শিশুকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যায় শোকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে শৈলকুপাবাসী। সবার একটাই দাবি ঘাতকের যথাযথ বিচার হোক। ঘাতক ইকবাল হোসেন কবিরপুর এলাকার গোলাম নবীর ছেলে।

নিহতরা হলো- সাফিন (৯), আমিন (৭) ও তাদের ফুফাতো ভাই মাহিন (১২)।

সাফিন ও আমিনের বাবা দোলোয়ার হোসেন শৈলকুপা পাইলট স্কুলের শিক্ষক। আর মাহিন শৈলকুপার মনোহরপুর গ্রামের রাশেদ হোসেনের ছেলে।

এদিকে, তিন শিশুর ঘাতক ইকবাল হোসেনকে দেখার জন্য উৎসুক শত শত মানুষ শৈলকুপা থানার আশেপাশে ভিড় করছে। ভিড় করছে নিহত শিশুদের বাড়িতেও।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাওয়া এম হাসান মুসা নামে স্থানীয় এক সংবাদ কর্মী জানান, এ ঘটনার পর থেকে পরিবারের জীবিত কোনো সদস্য বাড়িতে ছিলেন না। ভয়ে সবাই ঘর ছেড়ে পালিয়ে যান। আগুনে পোড়ার নৃশংসতা দেখে প্রথমে পাড়া প্রতিবেশীরাও কিছু বলতে চাননি। তারা ছিল বাকরুদ্ধ।

কবিরপুর পৌর এলাকার কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ জানান, অমানুষ না হলে একজন মানুষের পক্ষে এমন পৈশাচিক কাজ করা সম্ভব নয়।

শৈলকুপা উপজেলা চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন সোনা শিকদার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে জানান, জীবনে এমন নৃশংসতা দেখিনি। আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছি।

শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র কাজী আশরাফুল আজম বলেন, মানুষ কত পশু হলে এসব নৃশংস কাজ করতে পারে।

তিনি বলেন, এই নৃশংসতার বিচার হওয়া দরকার।

প্রসঙ্গত, রোববার সন্ধ্যায় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ইকবাল হোসেন নামে এক মেরিন ইঞ্জিনিয়ার তার বোন জেসমিন, ভাতিজা সাফিন, আমিন ও ভাগ্নে মাহিনের শরীরে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় সাফিন ও তার ভাই আমিন ঘটনাস্থলে ও ফুফাতো ভাই মাহিন ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে মারা যায়।

সূত্র :ঢাকাটাইমস

আপনার মতামত



close