প্রতিটি উপজেলায় নারী উন্নয়ন তহবিল গঠর করা হবে

টাইগার নিউজ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: খুলনা বিভাগের প্রতিটি উপজেলায় নারী উন্নয়ন তহবিল গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ওই তহবিল থেকে অসহায় নারীদের সাবলম্বী করে তুলতে সহায়তা দেয়া হবে। বিশেষ করে স্বামী পরিত্যাক্তা দরিদ্র ও অসহায় নারীরা কন্যা সন্তান নিয়ে চরম দৈণ্যতার মধ্যে নিপতিত হয়। ফলে তারা অল্প বয়সেই কন্যা সন্তানটি বিয়ে দিতে উদ্বুদ্ধ হয়। এই তহবিল থেকে এ ধরনের নারীদের সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে সুষ্ঠুভাবে জীবন-জীবিকা, তার কন্যা শিশুটির শিক্ষা ও উপযুক্ত বয়সে বিয়ে দেয়ার পদক্ষেপ গ্রহণ করা সহজ হবে।
দুর্যোগে নারী ও শিশু সুরক্ষা বিষয়ক এক গোল টেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আব্দুস সামাদ এ সব কথা বলেন। মঙ্গলবার মহানগরীর সিএসএস আভা সেন্টারে বেসরকারী সংস্থা উত্তরনের ‘চাইল্ড রেজিলেন্স প্রজেক্ট’র আওতায় এই গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান অতিথি বলেন, দুর্যোগে ক্ষয়-ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে যদি দুর্যোগ মোকাবেলায় মানসিক প্রস্তুতি থাকে। দুর্যোগ মোকাবেলা ও ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা নিয়ে জনসচেতনা সৃষ্টিতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী অনেক সংস্থাই সম্মিলিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সাইক্লোন শেল্টার অপর্যাপ্ত। তাই প্রতিটি বাড়িই সাইক্লোন শেল্টার উপযোগী করে গড়ে তুলতে হবে।
বৈঠকে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা দুর্যোগ, ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা এ কে এম মান্নান, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নার্গিস ফাতেমা জামিন, সেভ দ্যা সিলড্রেন খুলনার ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম সরকার। কালেরকণ্ঠের সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দীর সঞ্চালনায় উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন, সাংবাদিক শেখ আবু হাসান, কাজী মোতাহার রহমান, সোহরাব হোসেন, হেদায়েৎ হোসেন, কৌশিক দে, মনিরুজ্জামান মনু, রিয়াসাত আলী, মির্জা তহমিনা প্রমূখ। প্রকল্পের কার্যংক্রম তুলে ধরেন চাইল্ড রেজিলেন্স প্রজেক্ট’র সমন্বয়কারী হাসিনা পারভীন।
বৈঠকে বক্তারা বলেন, শিশু ও নারীরা প্রথমে পরিবার থেকেই নির্যাতনের শিকার হয়। পরিবারের সদস্যরাই প্রতিনিয়ত শিশু অধিকার লঙ্ঘণ করছেন। শিশুদের জীবনমানের উন্নয়নে তাই পবিবার থেকেই যুগোপযোগী পদক্ষেপ নিতে হবে। নারী ও শিশুরা যে শুধুমাত্র দুর্যোগের সময়ে নির্যাতিত হয় তা নয়, তারা প্রতিনিয়ত হয়রানি ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে।’

আপনার মতামত



close