নতুন রূপে আসছেন অপু বিশ্বাস

টাইগার নিউজ

apu Biswas 01টাইগার নিউজ ডেস্ক :: কিছুদিন আগে থেকেই খবরের শিরোনামে চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস। খবরটা হচ্ছে- জিরো ফিগার নিয়ে বড় পর্দায় ফিরছেন অপু। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই একের পর এক ব্যবসাসফল ছবি উপহার দেবার পর হঠাৎ করেই পর্দার আড়াল হন তিনি। অপু বিশ্বাস অভিনীত সবশেষ ছবি ছিল ‘মাই নেম ইজ খান’। বদিউল আলম খোকন পরিচালিত ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল গত বছরের ঈদ মৌসুমে। জিরো ফিগারের রহস্যও জানা গেছে। কয়েকমাস ধরে দিনে তিন ঘণ্টা জিমে সময় দিচ্ছেন এই চিত্রনায়িকা। পাশাপাশি নিজের পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার মাসুমার পরামর্শ মানছেন অক্ষরে অক্ষরে।
এসবের পরও প্রশ্ন থেকেই যায়। অপু সত্যিই কি ২৫ কেজি ওজন কমিয়েছেন? বাংলানিউজের বিনোদন বিভাগের ফটোসেশনের পর এ প্রশ্নের জবাবের পাশাপাশি নানা প্রশ্নের উত্তর দিলেন ক্রেজ নায়িকা অপু বিশ্বাস। বেশ কিছুদিন ধরে পত্রপত্রিকায় দেখছি ১০ কেজি, ১৫ কেজি আবার ২৫ কেজি ওজন কমিয়েছেন অপু। সত্যি কোনটা জানতে চাই?
অনেকে অনেকভাবে লিখলেও সত্যি বলতে আমি এখন পর্যন্ত ১৬ কেজি ওজন কমেয়েছি, জবাব অপুর। তিনি বলেন, তবে আমাকে আরো ২-৩ কেজি ওজন কমাতে হবে। আমার অভিনীত ‘ডেয়ারিং লাভার’ নামে একটি ছবি মুক্তি পাচ্ছে আগামী ১১ এপ্রিল। এখানে ভিন্ন এক অপুকে দেখবেন দর্শক।
‘ডেয়ারিং লাভার’ ছবিটি আপনার শেষ ছবির প্রায় এক বছর পর মুক্তি পাচ্ছে, ছবিটি নিয়ে জানতে চাই?
বদিউল আলম খোকন পরিচালিত এ ছবিটির কাহিনী লিখেছেন কমল সরকার। আর এটি আমার অভিনীত প্রথম ডিজিটাল ছবি। ছবিতে আমার পোশাকেও পরিবর্তন থাকবে। আমি এর আগে এমন পোশাকে কোন ছবিতে হাজির হয়নি। ছবিটির গল্প শহুরে এবং আমার বিপরীতে অভিনয় করেছেন শাকিব খান।
অনেকে ফিল্মে এসে নাম পরিবর্তন করেন আপনিও তো করেছেন…
আমার পুরো নাম অপু বিশ্বাস মেঘা। চলচ্চিত্রে মেঘা নামটা ব্যবহার করতে চেয়েছিলাম। তবে এসে জানলাম ইন্ডাস্ট্রিতে সেসময় মেঘা নামে আরেকজন আর্টিস্ট ছিলেন। ইন্ডাস্ট্রিতে এক নামে দু জন আর্টিস্ট খুব কমই দেখা যায়। তাই অপু নামটা ব্যবহার করেছি।
আপনি তো বগুড়ায় বড় হয়েছেন, চলচ্চিত্র অঙ্গণে কিভাবে জড়িত হলেন?
অনেক আগের কথা। আমি যখন বগুড়ায় অষ্টম শ্রেণীতে পড়তাম। তখন আনন্দধারা লাক্স ফটোজেনিক প্রতিযোগিতায় পেপার কেটে লুকিয়ে ছবি তুলে পাঠাই। এরপর সেরা ১০ এর জন্য নির্বাচিত হয়ে যাই। কিন্তু চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার সময় মা অসুস্থ হয়ে পড়ার কারণে আর ঢাকা আসতে পারিনি। পরে ছবিগুলো অভিনয়শিল্পী এবং আমার মামা (আহসানুল হক মিনু)-কে দিয়েছিলাম। মূলত তার মাধ্যমে ২০০৬ সালে আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবিতে এবং একই বছরের শেষদিকে সুভাষ দত্তের ‘ও আমার ছেলে’ ছবিতে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করি।
নায়িকা হিসেবে কোন ছবিতে প্রথম? ২০০৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করি। এফ আই মানিক পরিচালিত ছবিটি ব্যবসাসফল হয়।
ঢাকায় আসা শুরু কি তাহলে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে…
না। আমি যেহেতু নৃত্যশিল্পী ছিলাম তাই প্রায়ই ঢাকায় বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় আসা হত। নতুন কুঁড়ি, শাপলা কুঁড়িসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় নিয়মিত নাচ করতাম। বগুড়ায় আমার নাচের শিক্ষক ছিলেন মিলন ও পলাশ স্যার। এরপর তো মিনু মামার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয়। আর মা (শেফালি বিশ্বাস)ও খুব চাইতেন শহরের বিভিন্ন জায়গায় আমার ছবিসহ বড় বড় পোস্টার হবে। মানুষ আমাকে একনামে চিনবে।
বাবা এবং ভাই-বোনের কথাও জানতে চাই?
আমার বাবার নাম উপেন্দ্র নাথ বিশ্বাস। আমরা এক ভাই তিন বোন। ভাই (উত্তম বিশ্বাস) সবার বড় তারপর বোনেরা। আমি সবার ছোট। বড় বোনের নাম মিলি বিশ্বাস এবং মেজ বোনের নাম লতা সিংহ রায়।
আপনার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলো একটা তালিকা পাঠক জানতেই পারে!
‘কোটি টাকার কাবিন’, ‘পিতার আসন’, ‘চাচ্চু’, ‘দাদী মা’, ‘স্বামীর সংসার’, ‘আমি বাঁচতে চাই’, ‘কাবিননামা’, ‘তোমার জন্য মরতে পারি’, ‘মনে প্রাণে আছো তুমি’, ‘সন্তান আমার অহংকার’, ‘প্রিয়া আমার প্রিয়া’, ‘তুমি স্বপ্ন তুমি সাধনা’, ‘জান আমার জান’,‘বলোনা কবুল’, ‘প্রেমে পড়েছি’, ‘প্রেমিক পুরুষ’, ‘টপ হিরো’, ‘মেশিনম্যান’, ‘এক বুক ভালোবাসা’, ‘মাই নেম ইজ খান’সহ আরো অনেক ছবি ব্যবসাসফল হয়।
কোন কোন নায়কের বিপরীতে অভিনয় করেছেন?
শাকিব খান, মান্না ভাই, মারুফ, ফেরদৌস ভাই, রিয়াজ ভাই, আমিন খান, বাপ্পারাজ ভাই, ইমন, নিরব, অমিত হাসান ও সম্রাট ভাই এর সাথে অভিনয় করেছি।
সামনে কি কি ছবিতে অভিনয় করছেন?
নতুনভাবে ফিরে আসার পর ‘ডেয়ারিং লাভার’ এবং সাফিউদ্দিন সাফি পরিচালিত ‘ভালোবাসা এক্সপ্রেস’ ছবিটির কাজ শেষ করলাম। ছবি দুটি এ বছরই মুক্তি পাবে। এছাড়া বর্তমানে বদিউল আলম খোকনের ‘হিরো, দ্য সুপারস্টার’, ‘রাজা হ্যান্ডসাম’, মনতাজুর রহমান আকবরের ‘সালাম মালোয়েশিয়া’, ওয়াজেদ আলী সুমনের ‘হিটম্যান’সহ নাম চূড়ান্ত না হওয়া আরো একটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি।
নতুন ছবিগুলোর শুটিং কোথায় হবে?
হিরো দ্য সুপার স্টার ও রাজা হ্যান্ডসাম ছবির শুটিং এর জন্য লন্ডনে যেতে হবে। এ মাসেই যাবো, ভিসা প্রসেসিংয়ের কাজ চলছে। ছবিটি দুটি নিয়ে আমি বেশ আশাবাদী। ছবিদুটোর বেশিরভাগ কাজ বাইরে হবে। আর এসব ছবির জন্য আমার কস্টিউম ডিজাইনার হিসেবে কাজ করছেন রামিম রাজ।
নতুন ছবির গল্পে কি ধরনের চরিত্রে অভিনয় করছেন? আর এসব ছবিতে কার বিপরীতে অভিনয় করছেন?
আমাদের দেশের ছবিগুলোর গল্পতো প্রায়ই একই। সবগুলো ছবিতে প্রায়ই ধনী পরিবারের এবং একটি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করছি। আর সবগুলোতে আমার নায়ক শাকিব খান।
শাকিব ছাড়া অন্য কোন নায়কের বিপরীতে আপনাকে অভিনয় করতে দেখা যায় না কেন?
দেখুন, ইন্ডাস্ট্রিতে শাকিব এর চেয়ে বড় হিরো কে আছে! আর ইন্ডাষ্ট্রিতে নতুন সব নায়িকার শাকিব খানের সাথে একসময় ছবি করার স্বপ্ন থাকে। এই যেমন মাহিয়া মাহি নামে নতুন একটি অভিনেত্রী (ভালোবাসা আজকাল)-এ শাকিবের বিপরীতে অভিনয় করেছে বলেই ছবিটি আমি দেখতে গিয়েছিলাম। তাছাড়া আমি তার কোন ছবি দেখি নাই। আর আমাদের একসাথে অনেক ব্যবসাসফল ছবি আছে। তাই বর্তমানে শাকিব ছাড়া কারো সাথে অভিনয় করছি না।
আর বিয়ের বিষয়ে কি ভাবছেন?
(একটু হেসে) বিয়ের বিষয়টা আমি এখনো সেভাবে ভাবিনি। কারণ পরিবারে আমি সবার ছোট। যদি কালকেই কাউকে মনের মত পাই তাহলে পরিবারের অনুমতি নিয়ে বিয়ে করে ফেলতে পারি। তবে এক্ষেত্রে পরিবারের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।  সৌজন্য : বাংলা নিউজ

আপনার মতামত



close